নতুনরা কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করবেন এবং প্রাথমিক অবস্থায় ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার শুরুতে কি কি গাইডলাইন মানতে হবে নতুনদের?

ফ্রিল্যান্সিং করতে হলে প্রাথমিক অবস্থায় নতুনদের কি কি গাইডলাইন মানতে হবে 

১. ফ্রিল্যান্সিং কি বা ফিল্যান্সিং মানে কি?

ফ্রিল্যান্সিং শব্দের অর্থই হচ্ছে মুক্ত পেশা। অর্থাৎ কোনো নির্দিষ্ট প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তির আদেশ অনুযায়ী কারো কাজ না করাকেই ফ্রিল্যান্সিং বলে। মূলত যারা এ ধরনের কাজ করে থাকে তাদেরকে ফ্রিল্যান্সার বলা হয়।

ফ্রিল্যান্সিং হলো কোন প্রতিষ্ঠানে পার্মানেন্ট চুক্তিবদ্ধ না হয়ে বরং প্রজেক্ট বেসিসে কাজ করা। ফ্রিল্যান্সিং করে আসছে মানুষ শত বছর ধরে। যেমন একজন রিক্সাওয়ালাও ফ্রিল্যান্সার, কারণ সে অন্যের রিক্সা চালায়, ইচ্ছা হলে প্যাসেঞ্জার নেয়, নাহলে নেয় না। তার ফ্রিডম আছে। ইদানিং ফটোগ্রাফাররাও ফ্রিল্যান্সার, কারণ তারা কোথাও ফটোগ্রাফার হিসাবে চাকরি না করে বরং অনুষ্ঠান বেসিসে শুট করে আর পারিশ্রমিক নেয়।

২. ফ্রিল্যান্সিং কত প্রকার?

অনেকেই জানেন না ফ্রিল্যান্সিং কত প্রকার । ফ্রিল্যান্সিং মূলত দুই প্রকার  offline, online।

তার মধ্যে ফ্রীল্যান্সিং অনেক প্রকার হতে পারে যেমন ফ্রীল্যান্সিং ফটোগ্রাফার ফ্রীল্যান্সিং সাংবাদিকতা ইত্যাদিনের মাধ্যমে আপনি ঠিক কত ধরনের কাজ করতে পারবেন তার কোন শেষ নেই আপনার ভেতরে যেই জিনিসটি ভালো কাজ করে এবং যে জিনিসটি আপনি ভালো জানেন সেটা নিয়ে আপনি করতে পারেন।

৩. ফ্রিল্যান্সিং কেন করব?

ফ্রিল্যান্সিং কেন শিখব। এখন আমি যদি বলি ফ্রিল্যান্সিং কেন শিখব না। আমাদের প্রত্যেকটা তরুণের ফ্রিল্যান্সিং শেখা উচিত। কারন কেননা বর্তমানে চাকরির অবস্থা অনেক ভয়াবহ ধারণ করেছে। অনেকে চাকরি হারিয়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরছে।

কিন্তু যারা ফ্রিল্যান্সিং পেশায় নিয়োজিত আছেন, তারা কিন্তু হতাশ হয়নি। বরং এই করোনার মধ্যে ফ্রিল্যান্সারদের কাজের চাহিদা আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। তাহলে ভাবুন ফ্রিল্যান্সিং কেন করব।

ফ্রিল্যান্সিং কি এটি আমাদের জানতে হবে তথা মুক্ত পেশা যা কিনা বর্তমান যুগে বেকারত্বকে দূর করে তরুণ প্রজন্মকে আসার আলো হয়ে দাঁড়িয়েছে। সারা পৃথিবীতে জুড়ে লক্ষ লক্ষ মানুষ Freelancing পেশাকে বেছে নিয়েছে বাজারে চাকরির অভাব। তাই Freelancing ফ্রীল্যান্সিংকে অনলাইনে ইনকাম করার একটি বিরাট অংশের মাধ্যমে একটি পরিবার সুখী হতে পারে সুন্দর করে যদি সে সুন্দরভাবে মনোযোগ সহকারে ফ্রীল্যান্সিং কাজ করেন।

৪. ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখবো?

ফ্রীল্যান্সিংকে পেশা যখন আপনি যুক্ত হবেন, তখন আপনার মনের মধ্যে এই প্রশ্নটাই প্রথমে আসবে। ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখবো, কোথায় ফ্রিল্যান্সিং ভালো শেখায় ইত্যাদি।

এক্ষেত্রে আপনি চাইলে গুগলের সাহায্য নিতে পারেন। আপনি যদি অফলাইনে শিখতে চান, তাহলে আপনার আশেপাশে ভালো একটা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হন।

এবং ভর্তি হওয়ার আগে, আপনাকে নিশ্চিত হতে হবে ওই প্রতিষ্ঠানের সফল ইসটুডেন আছে কিনা। আর যদি অনলাইনে কোর্স করতে চান। সেক্ষেত্রে আপনাকে অনেক বেশি সচেতন থাকতে হবে।

বাংলাদেশে ফ্রিল্যান্সিং কাজগুলোর মধ্যে ডাটা এন্ট্রির জনপ্রিয়তা সবচেয়ে বেশি।

৫. ফ্রিল্যান্সিং ডাটা এন্ট্রি সম্পর্কে সম্পূর্ণ গাইড

ডাটা এন্ট্রি কি ?

ডাটা এন্ট্রির কাজ শেখার আগে ডাটা এন্ট্রি কি সে বিষয়ে জানতে হবে। ডাটা এন্ট্রি মানে হলো মূলত এক স্থান থেকে অন্য স্থানে ডাটাকে এন্ট্রি বা লেখা/প্রবেশ করানো। অর্থাৎ আপনি এক সোর্স থেকে অন্য সোর্স কিছু একটা বিষয় লিখলেন বা কপি করলেন, তাকে বলা হচ্ছে ডাটা এন্ট্রি। অর্থাৎ তথ্য লিপিবদ্ধের বা বিন্যস্ত করার কাজকে ডাটা এন্ট্রি বলা হচ্ছে। এই ডাটা বা তথ্য হতে পারে যেকোনো ধরনের মিডিয়া, ফাইল, ইনফরমেশন, ইত্যাদি।

অনেক সময় ফিজিক্যাল পেপার ডকুমেন্টকে ডিজিটালাইজ করতে সেগুলোকে কম্পিউটারে লিপিবদ্ধ করা হয় ও ডিজিটাল কপিতে পরিণত করা হয়। যে ব্যক্তি ডাটা এন্ট্রির কাজ করেন তাকে ডাটা এন্ট্রি অপারেটর বলা হয়।

নতুনদের ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার আগে আরো কি গাইডলাইন সম্পর্কে জেনে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করা 

 ১. ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখানো হবে?

 ২.কিভাবে আপনাদেরকে সাপোর্ট দেওয়া হবে? 

 ৩. কিভাবে গাইডলাইন হবে?

 ৪. কোর্সটা কয় মাসের?

 ৫. কত টাকা লাগবে শিখতে?

 ৬. আরো সবকিছু বিস্তারি জানতে চাওয়া?    

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *